Breaking News:
আমাদের সাইটে আপনাকে স্বাগতম।

পেপাল একাউন্ট খুলুন বাংলাদেশ থেকে (২০২১) | How to create paypal account in Bangladesh 2021

পেপাল একাউন্ট image

এক নজরে দেখে নিন, আর্টিকেলটি পড়ে কি কি শিখতে পারবেনঃ

(১) পেপাল কি? 

 (২) পেপাল একাউন্ট কতো প্রকার?
(৩) পেপাল একাউন্ট খুলতে কি কি প্রয়োজন?
(৪) পেপাল পারসোনাল একাউন্ট খোলার নিয়মঃ
(৫) পেপাল বিজনেস একাউন্ট খোলার নিয়মঃ
(৬)বাংলাদেশ থেকে পেপাল ভেরিফাই করার নিয়মঃ
(৭) বাংলাদেশে কি পেপাল সাপোর্ট করে?
(৮) পেপাল একাউন্টের মূল্যে কতো?
How to create paypal account in Bangladesh 2021

(১) পেপাল কি?

পেপাল হলো একটি অনলাইন আন্তর্জাতিক ব্যাংক একাউন্ট। অনলাইনে কারেন্সি আদান প্রদানের জন্য এটিই সবচেয়ে ভালো একটি মেথড। সকল দেশের লোকজনেরা এই পেপাল ব্যাংক একাউন্ট ব্যবহার করে। আমরা যারা বিভিন্ন সাইটে কাজ করি,  তাদের প্রত্যেকেরই একটি পেপাল একাউন্টের প্রয়োজন হয়।

(২) পেপাল একাউন্ট কতো প্রকার?

পেপাল একাউন্ট ২ প্রকার।

১. পারসোনাল একাউন্টঃ

 এই একাউন্ট ব্যবহার করা হয় পারসোনাল কাজের জন্য। যেমন বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশের সাথে তুলনা করা যায়। বিকাশ একাউন্টের মধ্যে যেমন পারসোনাল ও বিজনেস ২ ধরনের একাউন্ট রয়েছে তেমনি পেপালেরও।

বিকাশ পারসোনাল একাউন্ট সাধারণ ইউজাররা ইউজ করে থাকে।  তাদের নিজেদের কিছু লেনদেন করার জন্য। আর বিকাশ বিজনেস বা এজেন্ট একাউন্ট ব্যবহার করে থাকে,  যারা ব্যবসা করতে চায় তারাই। বিকাশে যেমন পারসোনাল একাউন্ট দিয়ে দিনে, মাসে বেশী লেনদেন করা যায়না ঠিক তেমনি পেপালের পারসোনাল একাউন্টেও। বিকাশ পারসোনাল একাউন্ট দিয়ে দিনে ২০,০০০ টাকা ক্যাশ ইন করা যায় আর এজেন্ট বা বিজনেস একাউন্ট আনলিমিটেড।

আমি বোঝাতে চাচ্ছি পারসোনাল বিকাশ একাউন্ট দিয়ে যেমন বেশী লেনদেন করা যায়না,  ঠিক তেমনি পেপাল পারসোনাল একাউন্ট দিয়ে ও বেশী লেনদেন করা যায়না। কারন পারসোনাল একাউন্ট গুলো শুধুমাত্র ছোটখাটো লেনদেন ও নিজের জন্য তাই এটিতে লিমিট রয়েছে।

২. পেপাল বিজনেস একাউন্টঃ

 এই ধরনের একাউন্টে কোনো লিমিট নেই। এটি দিয়ে আনলিমিটেড লেনদেন করা যাবে। এই একাউন্ট সাধারণত ব্যবহার করে যারা  বিজনেসম্যান। তবে সাধারণ আমজনতারাও কিন্তু বিজনেস একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারে। এবং ব্যবহার করতে পারে।  

(৩) পেপাল একাউন্ট খুলতে কি কি প্রয়োজন?

১। মোবাইল নম্বর
২। জিমেইল একাউন্ট
৩। মোবাইল বা কম্পিউটার
৪। ইন্টারনেট কানেকশন
৫। ইন্টারন্যাশনাল অনলাইন ব্যাংক একাউন্ট
৬। গুগল ক্রোম বা মজিলা ফায়ারফক্স ইন্টারনেট ব্রাউজার।
৭। SSN হলে ভালো হয়।

অনেকেই বলে থাকে যে ইউএসএ ফোন নাম্বার প্রয়োজন, এবং USA ফোন নাম্বার না দিয়ে একাউন্ট করলে নাকি একাউন্ট ক্লোজ করে দিবে বা লিমিট করে দেয় ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু USA ফোন নাম্বার ব্যবহার করতে গিয়ে, ওয়ানটাইম নাম্বারগুলো ব্যবহার করে একাউন্ট খুলে,  পরে যে সময় ভেরিফিকেশনে পড়ে তখন কান্নাকাটি শুরু করে। কারন ওয়ান টাইম নাম্বারগুলো শুধুমাত্র ১বার ইউজ করা যাবে, এর পরে ওই নাম্বার ব্যবহার আর করা যাবেনা,  আর একাউন্টটিকে ভেরিফিকেশন ও করতে পারবেনননা। তাই আমার পরামর্শ রইলো কখনোই টেম্পোরারি নাম্বার ব্যবহার করতে যাবেননা। নিজ নাম্বার ও নিজ লোকেশন সিলেক্ট করেই পেপাল একাউন্ট করুন।

বাংলাদেশে যেহুতু পেপাল অনুমোদিত নয় তাই USA Phone Number, USA Address দিয়ে একাউন্ট তৈরী করলে কেমন হয়?
আজকাল আমি প্রায়ই দেখি বা বলতে শুনি যে পেপাল একাউন্ট বিদেশী মানে usa information দিয়ে তৈরী করা হয়। একটু খোলোসা করে বলি তাহলে বুঝতে সুবিধা হবে আপনাদের, ধরুন USA ইনফরমেশন দিয়ে PayPal একাউন্ট তৈরী করতে চাচ্ছেন তাহলে আপনার যা যা প্রয়োজন হবেঃ
১। ইউএসএ নামের জিমেইল একাউন্ট
২। ইউএসএ ফোন নাম্বার
৩। ইউএসএ ব্যাংক একাউন্ট

এখন USA এর তথ্যে দিয়ে একাউন্ট করতে হলে একজন ইউএসের ব্যাক্তির নাম, এনআইডি কার্ড, জন্মতারিখ, USA কোথায় থাকেন তার ঠিকানা ইত্যাদি ইত্যাদি। এতোকিছু কি করে জোগাড় করা সম্ভব? সবকিছুই কিন্তু রিয়েল মানে অরিজিনাল হতে হবে নাহলে সবকিছু মাটি হয়ে যাবে।
আর এতোকিছু ফেক জিনিস অরিজিনাল করতে চেষ্টা ক্রমে কোথাও না কোথাও একটু ভূল থেকেই যাবে,  যার ফলে ডলার সহ একাউন্ট টি ক্লোজ হয়ে যাবে। তাই আবারো বলছি নিজের দেশের ও নিজের পরিচয়ে অরিজিনাল তথ্যে দিয়ে PayPal একাউন্ট টি তৈরী করুন।

(৪) পেপাল পারসোনাল একাউন্ট খোলার নিয়মঃ

প্রথমে আপনি Google Chrome বা মজিলা ফায়ারফক্স ইন্টারনেট ব্রাউজারটি ওপেন করুন। এরপর এড্রেস বারে লিখুন paypal.com বা লিংকে ক্লিক করে ব্রাউজারে ওপেন করুন https://www.paypal.com

পেপালের সাইটটিতে যাওয়ার পরে sign up করার অপশন দেখতে পাবেন, সেখানে ক্লিক করুন।
এরপর পারসোনাল একাউন্ট  সিলেক্ট করে নেক্সটে দিন।

এবার মোবাইল ডিভাইস হলে বাম পাশে কান্ট্রি সিলেক্ট করার অপশন দেখতে পাবেন আর কম্পিউটার হলে একটু উপরের দিকে দেখুন সেখান থেকে বাংলাদেশ Select করুন। এরপরে Phone Number টি টাইপ করে নেক্সটে ক্লিক করুন।

এরপরে আপনার ফোন নম্বরটিতে একটি এসএমএস যাবে,  সেটিতে ৬ সংখ্যার একটি কোড পাঠিয়েছে পেপাল, সেই কোড লিখুন খালি বক্সে এবং  Next এ যান।

এখন যে ফরমটি দেখতে পাচ্ছেন এটি ভালোভাবে পূরন করবেন। আপনার নামের সাথে মিল রয়েছে বিশেষ করে ডিসপ্লে নামের সাথে হুবাহুব মিল Email রয়েছে এমন নামের একটি ইমেইল বা জিমেইল টাইপ করুন।
২য় বক্সে,আপনার নামের প্রথম অংশ লিখুন। অবশ্যই এনআইডির সাথে হুবাহুব মিল রেখে দিবেন। এরপরের বক্সে নামের লাস্টের অংশটুকু লিখুন। এরপরে ভালো একটি শক্ত পাসওয়ার্ড টাইপ করুন ১২-১৪ টি ক্যারেক্টারের মধ্যে যেমনঃ 6491Gi-%(?: এই রকমের পাসওয়ার্ড দিয়ে নিচে টিক চিহ্ন দিন, ট্রামস এন্ড কন্ডিশন পড়ে।
 এরপরে Next এ যান।

এই ফর্মে আপনার এড্রেস দিতে হবে।
১ম বক্সে আপনার ফোন নাম্বারটি দিন, অবশ্যই কান্ট্রি কোড পূর্বে দিয়ে নিবেন যেমনঃ +88017 এরপরের বক্সে আপনার থানার নাম লিখুন, এবং কমা দিয়ে জেলার নাম লিখুন। এরপরের বক্সে আপনার শহরের নাম টাইপ করুন।  এরপরে আপনার state সিলেক্ট করুন এবং আপনার পোস্টাল কোড টাইপ করুন। পরবর্তী বক্সে এবং টিক চিন্হ দিয়ে কন্টিনিউ করুন সামনে।

এতোক্ষনে আপনি যে ইমেইলটি ব্যবহার করেছেন,  এই পেপাল একাউন্ট খোলার জন্য সেই ইমেইলটি চেক করুন, একটি ইমেইল গেছে কনফর্ম করুন মানে ইমেইলটি ভেরিফাই করুন।

(৫) পেপাল বিজনেস একাউন্ট খোলার নিয়মঃ

নিচের ধাপগুলো স্টেপ বাই স্টেপ ফলো করলে,  আপনি একটি বিজনেস একাউন্ট তৈরী করতে পারবেন। তাই আমার অনুরোধ রইলো ধাপগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়বেন।

১ ধাপঃ প্রথমেই আপনি খুব ভালো মানের একটি ইন্টারনেট ব্রাউজার নির্বাচন করুন, যেমনঃ Google Chrome, Mojila Firefox ধরে নিলাম আপনি ব্রাউজার ওপেন করেছেন। এখন কাজ হলো https://google.com এ গিয়ে  সার্চ বারে সার্চ করুন Create a PayPal account.

এখন আপনার সামনে পেপালের একটি লিংক দেখতে পাবেন, মানে আপনি যে সার্চ করেছেন; সেই সার্চ রেজাল্ট পেজের ১ম রেজাল্টি বা যেটি PayPal এর লিংক সেটিতেই ক্লিক করুন।

২ ধাপঃ পেপালের ওয়েবসাইটিতে প্রবেশ করার পরে, একটু নিচে স্ক্রোল করলে ২ টি অপশন দেখতে পাবেন। ১ম টি হলো পারসোনাল একাউন্ট ক্রিয়েট করার, এরপর ২য় টি হলো বিজনেস একাউন্ট ক্রিয়েট করার। আমরা যেহুতু Business Account Create করবো,  তাই বিজনেস একাউন্ট করার অপশনে ক্লিক করুন।

১ ফরমঃ Sign up business account

আপনার সামনে একটি ফরম পেজ আসবে, এইখানে খালি বক্সে আপনার ইমেল দিতে হবে। আপনার যে ইমেইলটির নাম আপনার এনআইডির সাথে হুবুহু মিল, এমন একটি ইমেইল একাউন্ট খালি বক্সে দিয়ে সাবমিট করুন।

সাবমিট করার পরেই আপনি  আরেকটি ওয়েবপেজ দেখতে পাবেন। সেখানে আপনাকে আপনার পেপাল একাউন্টের পাসওয়ার্ড সেট করতে হবে। মনে রাখতে হবে যে, আপনার পাসওয়ার্ড টি যতো শক্তিশালী করে তৈরী করবেন।  ততো বেশী আপনার পেপাল একাউন্ট টি নিরাপদ থাকবে। পাসওয়ার্ডে ক্যারেক্টার সংখ্যা কমপক্ষে ১০ টি দিবেন। ইংরেজী ছোট হাতের অক্ষর এবং ইংরেজী বড় হাতের অক্ষর, নাম্বার, সিম্বল এগুলো সব রাখবেন আপনার পাসওয়ার্ডে। যেমনঃ পাসওয়ার্ড এমন দিতে পারেন,  Rhasfg9150)?/!'&

পাসওয়ার্ড টি বক্সে লেখার পরে সাবমিটে ক্লিক করুন। তাহলেই সেভ হয়ে যাবে বা সেট হয়ে যাবে।

২ ফরমঃ Tell us about your business

এই ফরমটিতে কি কি বসাতে হবে এবং কিভাবে বসাবেন?  সব কিছুই বিস্তারিতভাবে বলে দিবো।
এখানে আপনার বিজনেস ডিটেলস যা জানতে চাইবে তা দিতে হবে। কিন্তু সব লিগ্যাল তথ্যে দিবেন।

দেখুন বিজনেস কন্টাক্ট নামে একটি নামে একটি লেখা আছে,  তার নিচে ৩ টি খালী বক্স রয়েছে। প্রথম বক্সটিতে আপনার এনআইডি কার্ডে যে নামটি রয়েছে তার প্রথম অংশ দিন।

এবং যে ২য় বক্স রয়েছে, সেখানে আপনার এনআইডি কার্ডে যে নামটি রয়েছে তার ২য় অংশ লিখুন।

এবং ৩য় বক্সটিতে আপনার বিজনেস নাম দিতে হবে। আপনার যদি কোনো ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, থাকে তাহলে আপনি আপনার ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেলের নামটি লিখে দিতে পারেন। আর যদি কিছুই না থাকে তাহলে আপনার নামটি লিখুন এরপরে সাথে LTD লিখে দিন।

বিজনেস ফোন নাম্বার চাইবে এই বক্সে আপনি আপনার নিজের ফোন নম্বরটি দিয়ে দিবেন। এটা আপনার বাংলাদেশী নাম্বার হলেও সমস্যা নেই, কিন্তু নাম্বারটি যেনো এক্টিভ থাকে।  বা যে ফোন নাম্বারটি আপনার নিজের নামে রেজিস্ট্রেশন করা, এরকম ফোন নাম্বার দিন। ফোন নাম্বারের পূর্বে নিজের দেশের কান্ট্রি কোড দিতে ভুলবেননা, যেমনঃ +88017214772

এরপরে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো, আপনার বিজনেস এড্রেস দিতে হবে। কিছু লোক এড্রেস ১ ও ২ দেখলেই ভয় পেয়ে যায়। এগুলো দেওয়া বা পূরন করা একবারে সহজ, ভয় পাবার দরকার নাই। আপনি যদি শহরে থাকেন তাহলে,  এড্রেস ১ এ আপনার বাসার হোল্ডিং নম্বর লিখবেন।অথবা আপনার বাসার নামটি লিখে দিতে পারেন। আর যদি গ্রামে থাকেন তাহলে গ্রামের নামটি দিয়ে দিবেন।

 এড্রেস ২ তে আপনি আপনার এলাকার বা যে পোস্ট অফিসটি নিকটে সেটির নাম দিয়ে দিবেন, এরপরে কমা দিয়ে আপনার কাছের থানার নামটি দিয়ে দিবেন।

সিটি লেখা বক্সে আপনার জেলার নামটি দিয়ে দিবেন। এরপরের বক্সে আপনার নিকটস্থ বা পরিচিত, একটি জায়গা সিলেক্ট করে দিতে হবে। পোস্টাল কোডে আপনার পোস্টাল কোডটি লিখে দিবেন। পোস্ট কোড কোথায় পাবেন? আপনার এনআইডি কার্ডের পেছনে দেখতে পাবেন, বা আপনার এলাকার পোস্ট অফিসের লোকদের কাছে জিঙ্গেস করলেও পেয়ে যাবেন।

ট্রামস এন্ড কন্ডিশন টি পড়ে টিক চিন্হ দিয়ে দিন।

৩ ফরমঃ Describe Your business

 এই ফরমটিতে আপনার বিজনেস সম্পর্কে কিছু তথ্য দিতে হবে। যেমনঃ আপনি কবে থেকে বিজনেস করছেন, কোন ধরনের বিজনেস, কতো টাকা ইনকাম মাসে, কোনো ওয়েবসাইট আছে কিনা ইত্যাদি ইত্যাদি।

১মে বিজনেস টাইপ, এখানে আপনি individual সিলেক্ট করুন।
২য় বক্সে  Business Service লিখে দিবেন।
৩য় বক্সে আপটু ৫,০০০ কাড, সিলেক্ট করে দিবেন।
৪র্থ বক্সে আপনি কবে থেকে ব্যবসা শুরু করেছেন;  সেই তারিখ, মাস, বছর , সিলেক্ট করে দিবেন।
এরপরে আপনার কোনো ওয়েবসাইট থাকলে সেটি দিবেন, না থাকলে দেওয়ার প্রয়োজন নেই।  এটি অপসোনাল।

৪ ফরমঃ Tell us more about you

এখানে আপনার নিজের সম্পর্কে তারা জানতে চাইবে। যেমন আপনার জন্ম তারিখ, আপনার পেশা,  আপনার ঠিকানা।
১ম আপনি আপনি জন্ম তারিখটা সিলেক্ট করে দিবেন। এরপরে Occupation এ আপনার পেশা সিলেক্ট করে দিবেন।
হোম এড্রেসে আগের মতো সেম এড্রেস দিয়ে দিবেন।

এরপরেই দেখবেন একাউন্ট ওপেন হয়ে গেছে।

আপনার ইমেইলে প্রবেশ করে দেখুন পেপাল থেকে একটা ইমেইল এসেছে, আপনি সেখানে ক্লিক করে ভেরিফাই করে নিন ইমেইলটি।

(৬)বাংলাদেশ থেকে পেপাল ভেরিফাই করার নিয়মঃ

একাউন্ট টি ভেরিফাই করার জন্য আপনার PayPal একাউন্টের ড্যাসবোর্ডে যান। এবং ওয়ালেটে যান।
এরপরে Link a Bank এ ক্লিক করুন।

এরপর চেকিং সিলেক্ট করে দিন, এখন পেয়নিওর ব্যাংক একাউন্ট টিতে গিয়ে Routing Number and Account Number ১ম বক্স ও ২য় বক্সে দিয়ে,  ফিলাপ করে।  Agree and link লেখায় ক্লিক করুন।
আপনার ব্যাংক একাউন্টে লগইন করে,  Deposit অপশনে গেলেই এই নাম্বার ২টি পেয়ে যাবেন।

এরপরে পেপাল আপনার ব্যাংক একাউন্ট ছোট একটি ডিপোজিট পাঠাবে ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যে। ডিপোজিট পাঠালে পেপাল একাউন্ট লগইন করলেই নোটিশ দেখতে পাবেন। সেখানে লেখা থাকবে ও দুটি বক্স দেখতে পাবেন, সেই বক্সে ডিপোজিট দুটির ছোট এমাউন্ট সংখ্যাটি দিয়ে দিবেন।
ব্যাংক একাউন্টের ডিপোজিটে গেলেই ছোট্র ডেপোজিট সংখ্যা দুটি দেখতে পাবেন।  

(৭) বাংলাদেশে কি পেপাল সাপোর্ট করে?

হ্যালো ভাই,  আপনি যেহুতু এই প্রশ্ন করছেন তাই মনে হচ্ছে মোটামুটি কিছু জানেন পেপাল সম্পর্কে, মানে পেপাল একাউন্ট সম্পর্কে মোটামুটি জ্ঞান আহরণ করেছেন। ওকে মেইন টপিকে যাই, পেপাল বাংলাদেশে সাপোর্টেড না, এটা আমাদের কারনেই। কারন পেপাল ব্যবহার করা আমাদের দেশীয় ভাবে সিকৃতি দেয়নি আমাদের দেশের সরকার। সরকার যদি পেপালকে আমাদের দেশে এলাউ করতো তাহলে খুব সহজেই ব্যবহার করা যেতো, পেপাল বাংলাদেশে সিকৃতি পায়নি তাই বলে যে বাংলাদেশের নাগরিকরা এটি ব্যবহার করতে পারবেনা এমন নয়।

তাহলে বলতে পরেন যে ভাই, পেপাল যদি বাংলাদেশে সিকৃতি না পেয়েও যদি পেপাল ব্যবহার করা যায় তাহলে পেপালকে বাংলাদেশ সরকার সিকৃতি দেওয়ার কি প্রয়োজন? হ্যা রাইট আপনি মোটামুটি একটু বুঝেছেন তবে আমি আপনার সাথে পুরোপুরি সহমত নই। পেপাল একাউন্ট যদি বাংলাদেশে এলাউ মানে সিকৃতি পেতো তাহলে একাউন্ট ভেরিফাই করার জন্য বিদেশী ব্যাংকের সাহায্য নিতে হতো না। বর্তমানে একটা পেপাল একাউন্ট ভেরিফাই করার জন্য বিদেশী অনলাইন ব্যাংক একাউন্ট করে সেটি দিয়ে ভেরিফাই করতে হয়, কিন্তু যদি দেশে অনুমোদন পেতো তাহলে দেশীয় যেকোনো ব্যাংক একাউন্ট যুক্ত করলেই ভেরিফায়েড হয়ে যেতো।

 এবং এখন আমরা কোনো টেকনিক্যাল প্রবলেমে পড়লে জোর গলায় হেল্প চাইতে পারিনা পেপালের কাছে।  কিন্তু যদি দেশে সিকৃতি পেতো তাহলে,  আমাদের গলার ভয়েস একটু বেশী থাকতো। যে কেনো আমাদেরকে সাহায্য করবেননা, বা কেনো দ্রুত সাপোর্ট দিচ্ছেনা ইত্যাদি ইত্যাদি। তাই বলে যে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সার রা পেপাল ইউজ করছেনা তা নয়। আমাদের দেশের ৩ ভাগের ২ ভাগ ফ্রিল্যান্সারই পেপাল ব্যবহার করতেছে।

কিন্তু যারা আমজনতা তারা পরে রয়েছে, যে বাংলাদেশে পেপাল সাপোর্ট করেনা। বা বলে সরকারি ভাবে অনুমোদিত নয়,  তাই এটি ব্যবহার করা যাবেনা বা যায়না। অথবা অনেকে মনে করেন পেপাল ব্যবহার করা রিস্ক, যেকোনো সময় একাউন্ট বন্ধ হয়ে যেতে পারে, আসলে ভয় পাওয়ার কিছুই নাই। আপনার পেপাল একাউন্টের ইনফরমেশনগুলো সঠিক হয় তাহলে বন্ধ হয়ে যাওয়ার কোনো ভয় নেই।

(৮) পেপাল একাউন্টের মূল্যে কতো? আমাদের দেশে অনেকেই পেপাল একাউন্ট তৈরী করে বিক্রি করে। পেপাল একাউন্ট ভেরিফায়েড করে সেল করাই একদল লোকদের কাজ, তারা শুধু একাউন্ট তৈরী করে আর সেল দেয়। এই কাজ করে যে টাকা পায় তা দিয়েই হাত খরচ ও সাংসারিক খরচ চালায়।

তবে হ্যা যে কথাগুলো না বললেই নয়, একটি পেপাল একাউন্ট তৈরী করা এবং ভেরিফায়েড করা কম সময়ের ব্যাপার নয়। কমপক্ষে ৩-১৪ দিন ব্যায় হতে পারে বা অপেক্ষা করা লাগে,  একটি পেপাল একাউন্ট ভেরিফাই করার জন্য। কিন্তু কিভাবে একদল লোকে সেগুলো ১,০০০ বা ১৫০০ টাকায় বিক্রি করে। তারমানে কি একাউন্টগুলো কি রিয়েল তথ্যে দিয়ে খোলা হয়েছে এবং সম্পুর্ন কমপ্লিট করেছে? আমার কাছে মনে হয় না।

একটি অরিজিনাল ভেরিফায়েড পেপাল একাউন্টের মূল্যে সর্বনিম্ন ২-৩ হাজার টাকা প্রযন্ত হয়ে থাকে, কিন্তু যারা এর কমে সেল করে সেগুলো ফেক ইনফরমেশন দিয়ে তৈরী করা বা ফেক তথ্যে দিয়ে ভেরিফাই করা।

আমি কখনোই বলবোনা আপনি পেপাল একাউন্ট ক্রয় করে ব্যবহার করুন, কারন এইসব একাউন্ট ব্যবহার করায় ঝুকি থাকে। একটা একাউন্ট ক্রয় করলেন কিন্তু সেটা সঠিক ইনফরমেশন বা ভুয়া ইনফরমেশন দিয়ে খোলা কিনা তা যাচাই করার কোনো সিস্টেম নাই। যদি ভুয়া ইনফরমেশন দিয়ে একাউন্ট টি খোলা হয় তাহলে সে একাউন্ট টি ক্লোজ করে দিতে পারে পেপাল টিমেরা আর সেই একাউন্টে যদি ডলার থাকে তাহলে সেগুলো ও শেষ হয়ে যাবে।


 তাই আমার পরামর্শ হলো পেপাল একাউন্ট না কিনে নিজ হাতেই নিজ এনআইডি ও নাম ও নিজ তথ্যে দিয়ে পেপাল ও ইন্টারন্যাশনাল ব্যাংক একাউন্ট করে এরপরে দুটিকে কানেক্ট করে ভেরিফাই করুন এবং নিশ্চিতে ব্যবহার করুন।

পেয়নিয়র একাউন্ট কিভাবে তৈরি করতে হয়, তা না জানলে কমেন্ট করুন। তাহলে আমি পরবর্তীতে পোস্ট লিখবো।

 Tags: paypal account, paypal, paypal.com, paypal bangladesh, paypal log in, paypal login, pay pal, paypal sign up, paypal account create, http www paypal com cy, paypal account in bangladesh, paypal account open, paypal to bkash, paypal.com cy bangladesh, create paypal account bd, create paypal account bangladesh, www.paypal/cy/home login, paypal account login, paypal account bd, paypal.com bd, paypal sign in, how to create paypal account in bangladesh, paypal account sign, how to open paypal account in bangladesh, পেপাল একাউন্ট, পেপাল, paypal account open in bangladesh, বাংলাদেশ থেকে পেপাল অ্যাকাউন্ট, paypal account in bangladesh 2021, paypal login bangladesh, পেপাল একাউন্ট খুলুন বাংলাদেশ থেকে, paypal account bangladesh 2021, পেপাল একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২১, পেপাল ব্যবহারের নিয়ম,  বাংলাদেশ থেকে পেপাল ভেরিফাই, কিভাবে পেপাল একাউন্ট খুলবো বাংলাদেশে, বাংলাদেশে পেপাল একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২১, পেপাল একাউন্ট খুলুন বাংলাদেশ থেকে।

   

0/Post a Comment/Comments