হাই ভিজিটররা আশাকরি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছেন।

 আমিও আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহর রহমতে ভালসই আছি। 

আজ আমি আপনাদের জানেননা খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি পোস্ট লিখতে চলেছি, 

আশাকরি পোস্ট টি আপনাদের কাছে ভালো লাগবে এবং উপকৃত ও হবেন। 

আজকের পোস্ট টি হলো আমার দেখা সবচেয়ে সুন্দর একটি ভার্চুয়াল স্মাট ফোন কিবোর্ড এ্যাপ নিয়ে। 


কি কি জানতে পারবেন এই পোস্টে একনজরে দেখে নিনঃ

  • ১। ভার্চুয়াল বা ইন্টারনাল কিবোর্ড কি?
  • ২। ভার্চুয়াল কিবোর্ডের সুবিধা
  • ৩। ভার্চুয়াল কিবোর্ডের অসুবিধা
  • ৪। কোন কোন কিবোর্ড সবচেয়ে বেস্ট বা জনপ্রিয়?
  • ৫। মায়াবী কিবোর্ড এ্যাপ রিভিউ 


ভার্চুয়াল বা ইন্টারনাল কিবোর্ড কি? 

ভার্চুয়াল বা ইন্টারনাল কিবোর্ড হলো যে কিবোর্ড বাস্তবে ধরা যায়না এবং ছোঁয়া যায়না কিন্তু টাচ করে টাইপিং করা যায় তাকেই বলা হয় ভার্চুয়াল কিবোর্ড।

 বা ইন্টারনাল কিবোর্ড।


ভার্চুয়াল কিবোর্ডের সুবিধাঃ

এই কিবোর্ড স্মাট ফোনে ব্যবহার করার জন্য আলাদা করি কোনো বোঝা বহন করতে হয়না, 

যেসময় প্রয়োজন সেইসময় শুধু লেখার জন্য ফোনে ক্লিক করলেই চলে আসে।

 ডেস্কটপ যাকে আমরা সাধারণত কম্পিউটার আর ল্যপটপ কে আমরা কম্পিউটার কম লোকেই বলি বেশিই ল্যপটপ বলে থাকি। 

যাইহোক এই ল্যপটপ বা কম্পিউটার দিয়ে টাইপিং করার জন্য ভার্চুয়াল কিবোর্ড খুব কম লোকেই ব্যবহার করে সবাই এক্সটারনাল কিবোর্ড ব্যবহার করে। 

এই এক্সটারনাল কিবোর্ড ব্যবহার করার জন্য ব্যাগে করে কিবোর্ড নিয়ে ঘুরতে হয়

 কিন্তু স্মটফোনে ভার্চুয়াল কিবোর্ড দিয়ে লেখা যায় যার জন্য বাইরে কিবোর্ড লাগানোর প্রয়োজন হয়না।

 আর অতিরিক্ত ঝামেলাও বহন করতে হয়না।



ভার্চুয়াল কিবোর্ডের অসুবিধাঃ

ভার্চুয়াল কিবোর্ড দিয়ে বাংলা এবং ইংরেজী টাইপিং করা যায় কিন্তু দ্রুত টাইপিং করা যায়না।  

এক্সটারনাল কিবোর্ড দিয়ে যেমন খুবই দ্রুতগতিতে টাইপিং করা যায় কিন্তু ভার্চুয়াল কিবোর্ডে দ্রুত লেখা বা টাইপিং করা যায়না।

 এর চেয়েও বড় সমস্যা হলো যারা কোডিং শিখতে চান তারা যদি ভার্চুয়াল কিবোর্ড দিয়ে কো‌ডিং শিখতে যান 

তাহলে কোড  লিখতে অনেক সমস্যায় পড়তে পারেন। কিন্তু যদি এক্সটারনাল কিবোর্ড দিয়ে যদি প্রাকটিস করেন বা কোডিং শিখেন তাহলে অনেক সহজে কোডিং লিখতে পারবেন। 

 সুতরাং ভার্চুয়াল কিবোর্ডে কিছু অসুবিধা ও রয়েছে।


কোন কোন কিবোর্ড সবচেয়ে বেস্ট বা জনপ্রিয়?

সত্যি বলতে সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয়তা পেয়েছে রিদ্মিক কিবোর্ড টি 

এবং এরপরে অন্যান্য কিবোর্ড গুলো যেমন মায়াবি কিবোর্ড, বিজয় কিবোর্ড ইত্যাদি ইত্যাদি। 

তবে রিদ্মিক কিবোর্ডের চেয়ে মায়াবি কিবোর্ড টি দিয়ে খুব দ্রুতগতিতে টাইপিং করা যায় যা সামনে আলোচনা করবো। 


মায়াবী কিবোর্ড এ্যাপ রিভিউঃ

কিবোর্ড টির নামটি যেমন মায়াবী।

 তেমনি কিবোর্ডটির মধ্যে কেমন যেনো একটা মায়া মায়া রয়েছে ট্রাস্ট মি বন্ধুরা, 

আপনারা যদি একবার এটি ব্যবহার করেন তাহলেই এটির মায়ায় পরে যাবেন। 

আমি অনেক কিবোর্ড ব্যাবহার করেছি এ প্রযন্ত কিন্তু আমি এই মায়াবী কিবোর্ড টির প্রেমে পড়ে গেছি।

 আমার কাছে এটি দিয়ে টাইপিং করতে অনেক ভালো লাগে।

এবং আমার ফ্রেন্ডসদের যাদেরকে ব্যবহার করার জন্য বলেছিলাম তারাও এটি ব্যবহার করে সন্তুষ্ট।

এই এ্যাপটি মানে এই কিবোর্ড টিতে বাংলা ফন্ট গুলো খুবই সুন্দর ভাবে সাজানো।

 যা দিয়ে খুব সহজেই টাইপিং করা যায়।




এরপরে রয়েছে এই কিবোর্ড টিতে রঙিন ফন্ট।

 যা খুবই স্পষ্ট ভাবে দেখা যায় অক্ষরগুলো তাই টাইপিং করা যায় দ্রুত।

এছাড়াও এই কিবোর্ড টিতে রয়েছে শব্দ শাজেশন বার। এবং রয়েছে হাজার হাজার ইমোজি বা স্টিকার।

 এবং আরো রয়েছে ক্লিপবোর্ড যা ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় জিনিস সেভ করে রেখে প্রয়োজনীয় সময়ে তাড়াতাড়ি পেস্ট করে কাজ দ্রুত সম্পাদন করা যায়। 

এই মায়াবী কিবোর্ড ভার্চুয়াল কিবোর্ড এ্যাপটি প্লেস্টোরে গিয়ে "মায়াবী" 

লিখে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন।


আজকের মতো এখানেই পোস্ট টি শেষ করছি। আশাকরি পোস্ট টি আপনার কাছে ভালো লেগেছে, 

এবং এই পোস্ট টি দ্বারা উপকৃত ও হবেন। 

Share To:

Post A Comment:

0 comments so far,add yours